বাউফলে খালে বাঁধ দিয়ে ছাত্রলীগ নেতার মাছ চাষ

0

 

কৃষ্ণ কর্মকার, বাউফল : পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার চরমিয়াজান গ্রামের একটি খাল বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন সিদ্দিকুর রহমান নামে এক ছাত্রলীগ নেতা। মাছ চাষের প্রয়োজনে বন্ধ করে দিয়েছে চরাঞ্চল কৃষকের ভাগ্যের দুয়ার স্লুইসগেট। প্রায় আধ কিলোমিটার খাল দখল করে চলছে ওই নেতার মাছ চাষ। আর এ নিয়ে একাধিক কৃষক সাংবাদিক দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করলেও চোখ মুখে ছিল আতংকের ছাপ। অভিযোগ রয়েছে, ছাত্রলীগ নেতার বেপরোয়া আচরনের কাছে এলাকাবাসী অনেকটা অসহায়।

সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, উপজেলার ছোট বড় প্রায় ১৮টি চর নিয়ে নবগঠিত চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়ন। এই ইউনিয়নে প্রায় ১৫ হাজার লোক বসবাস করছে। অধিকাংশ লোক নি¤œ আয়ের যাদের ৭০ ভাগ লোক কৃষি কাজের উপর নির্ভরশীল। সরকার জলোচ্ছ্বাসের হাত থেকে এ চরবাসিকে রক্ষার জন্য চরের চার দিকে ১৪ কি.মি. রেড়িবাঁধ র্নিমান করেন। জমিতে চাষাবাদের সুবিধার্থে চর ব্যারেট নদীর মোহনা থেকে সরকারী পুকুর পর্যন্ত প্রায় আড়াই কি.মি. দির্ঘ একটি খাল খনন করেন এবং চরমিয়াজান বাজারের কাছে দশলক্ষ টাকা ব্যায়ে একটি স্লইচ গেট র্নিমান করেন। কিন্তু সে খাল এখন কৃষকের কোন উপকারে আসছে না। স্থানীয় প্রান্তিক চাষিরা অভিযোগ করেন, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান খান ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে প্রায় ৭বছর ধরে তার বাড়ীর কাছের ওই খালের বিভিন্ন অংশে বাধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন এবং তার বাড়ীর পশ্চিম দিকে র্নিমিত স্লুইচগেটে দরজা আটকে দিয়ে ওই খালের পানি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন। ফলে বেড়ি বাঁেধর মধ্যের অংশে খালের পানি ব্যাবহার করতে পারছে না কৃষক। স্থানীয় জলিল পন্ডিত নামে এক কৃষক অভিযোগ করেন, চাষাবাদ দুরের কথা, গ্রামের নারী পুরুষেরা দৈনন্দিন যে পানিটা ব্যাবহার করবে তাও করতে পারেনা। একটু পানির জন্য প্রায় এক কি. মি, পথ হেটে গিয়ে নদী থেকে পানি আনতে হয়। রবি শষ্যের মৌসুমে ফলন ভাল হলেও সেচের অভাবে শুকিয়ে চৌচির হয়ে যায় ফসলের মাঠ। কারন ওই নেতার নির্দেশ তার দখল কৃত খাল থেকে পানি সেচ দেওয়া যাবে না। এলাকাবাসীর দাবী খালের বাঁধ দ্রুত অপসারন করে চলতি রবি শষ্য চাষে কৃষককে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেওয়া।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা সাংবাদিকদের বলেন, বাঁেধর জায়গায় আমার রেকর্ডিয় সম্পত্তি। তাতে কার কি ক্ষতি হলো তা আমার দেখার বিষয় না।

বাউফল উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, বিষয়টি আমার জানানেই। খোঁজ নিয়ে খুব দ্রুত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।