বাউফলে চেয়ারম্যানকে লাঞ্চিত: দু’পক্ষের সংঘর্ষ, আহত-৪

1

বাউফল প্রতিনিধি: বাউফলের চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানকে লাঞ্চিত করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে কমপক্ষে ৪ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে দু’জনকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং ২ জনকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার (২৫ মার্চ) সন্ধায় উপজেলার কালাইয়া লঞ্চঘাটে এঘটনা ঘটেছে। এব্যপারে বাউফল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এদিকে শনিবার দুপুরে কালাইয়া ইউপির ৩ নং ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশ বিশিষ্ঠ বিএনপি কর্মী নূরু চৌকিদারের বাড়ির পুকুর থেকে বিশালাকৃতির একটি রামদা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

স্থানীয়ভাবে জানা গেছে, চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এনামুল হক তাঁর বড় ভাই ও কালাইয়া ইউপির চেয়ারম্যানের পরিবারের সদস্যদের ঢাকায় পাঠানোর উদ্দেশ্যে কালাইয়া লঞ্চঘাট গেলে ওখানকার মাধবের ফার্মেসী, জুয়েলের কসমেটিক্সের দোকান ও চিত্ত বেপারির কাঁচামালের দোকানে রাম দা, রড ও লাঠিসোটাসহ পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা কালাইয়া ইউপির ঘোড়া মার্কার প্রার্থী মো. রমিজ উদ্দিন এবং তার ভাই রিয়াজসহ ১৫/২০ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল এনামুলের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় এনামুলকে রক্ষা করতে সমর বণিক নামের আওয়ামী লীগের এক কর্মী এগিয়ে এলে রমিজের সমর্থকরা তাকে রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে খালে ফেলে দেয়। খবর পেয়ে আওয়ামী লীগ কর্মীরা ঘটনাস্থলে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এসময় রমিজ, রিয়াজ, সমর বণিক ও জাহাঙ্গীর নামে ৪ জন আহত হয়। এদের মধ্যে ২ জনকে বরিশাল শের ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও ২ জনকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এব্যপারে মিজান মোল্লা বাদি হয়ে রমিজ উদ্দিনকে প্রধান আসামি করে ১১ জনের বিরুদ্ধে বাউফল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এদিকে শনিবার দুপুরে কালাইয়া ইউপির ৩ নং ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশ বিএনপি কর্মী ও ঘোড়া মার্কার সমর্থক নূরু চৌকিদারের বাড়ির পুকুর থেকে বিশালাকৃতির একটি রামদা উদ্ধার করেছে পুলিশ।