বাউফলে দুই শিক্ষার্থীর বন্দিদশা

3

অতুল পাল,বিশেষ প্রতিনিধি: বাউফলের কেশপবপুর ইউনিয়নের বাজেমহল গ্রামের দুই শিক্ষার্থীর নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার ফলে লোক লজ্জায় তারা লেখা পড়া বাদ দিয়ে বন্দী জীবনযাপন করছে। ওই শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত জীবন নিয়ে তাদের অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পরেছেন।

জানা গেছে, বাজেমহল গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ইউনুচ মিয়ার ছেলে পুলিশ কনস্টেবল সিরাজ (২২) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বাজেমহল ওবায়দিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার একাদশ শ্রেণিতে পড়–য়া  এক শিক্ষার্থীর (১৮) সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। সিরাজ প্রেমের অভিনয় করে মোবাইল দিয়ে ওই শিক্ষার্থীর বেশ কিছু নগ্ন ছবি তোলে। সম্প্রতি সিরাজ ফেসবুকে ওই নগ্ন ছবিগুলো ছেড়ে দেয়। এঘটনায় এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি হলে সিরাজ ওই নগ্ন ছবিগুলো তার ফেসবুকের টাইমলাইন থেকে মুছে ফেললেও ততক্ষণে ছবিগুলো মোবাইল থেকে মোবাইলে ছড়িয়ে পড়ে। অপরদিকে একই গ্রামের অপর এক দৃর্বৃত্ত যুবক মাদ্রাসা পড়–য়া অপর এক শিক্ষার্থীর সাথে একই ধরণের ঘটনা ঘটিয়েছে। এঘটনার পর সন্তানদের ভবিষ্যৎ জীবন নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পরেছেন তাদের পরিবারের সদস্যরা। এদিকে ঘটনা জানাজানির পর থেকে ওই দুই শিক্ষার্থী লোক লজ্জায় বাইরে বেড় হচ্ছে না এবং মাদ্রসায় যাওয়াও বন্ধ করে দিয়েছেন। তারা এখন ঘরের মধ্যে বন্দি জীবনযাপন করছে। অপরদিকে সাম্প্রতিক সময়ে পুলিশে চাকুরি পাওয়া সিরাজ প্রশিক্ষণে রয়েছেন। তার পরিবারের পক্ষ থেকে ওই ঘটনার সাথে সিরাজ জড়িত নন বলে জানানো হয়েছে। এ ব্যপারে কেশবপুর ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যার মোঃ মহিউদ্দিন আহমেদ লাভলু বলেন, এ বিষয়ে আমি আমার সাধ্যের মধ্যে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেব এবং ওই দুই শিক্ষাথী যাতে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারে তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। বাউফল থানার ওসি আযম খাঁন ফারুকী বলেন, আমরা এ সম্পর্কে খোঁজ খবর নিচ্ছি। ঘটনার সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।