বাউফলে পূজামন্ডপ পরিদর্শন কালে চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ বিদেশি নাগড়িক হত্যা বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের অংশ

0

 

কৃষ্ণ কর্মকার. বাউফল
দেশকে অস্থিশিল করার জন্য বিএনপি জামায়াত নতুন করে ষরযন্ত্র শুরু করেছেন। সম্প্রতী বিদেশী দুই নাগড়িক হত্যা বিএনপি জামায়াতের ষরযন্ত্রেরই অংশ। এ ষরযন্ত্রের বিরুদ্ধে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ স্থানীয় সাংসদ আ স ম ফিরোজ পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার বিভিন্ন পূজামন্ডব পরিদর্শন শেষে সন্ধা সাতটার দিকে কালাইয়া মদন মোহন জিউর আখড়া বাড়ির পূজামন্ডব পরিদর্শন কালে হিন্দু ধর্মালম্বীদের সাথে মতবিনিময় কালে এ কথা বলেন। তিনি আরও বলেন ধর্ম যার যার উৎসব সবার। শরাদীয় দূগাপূজা এখন জাতীয় উৎসবে পরিনত হয়েছে। বাংলাদেশ সম্প্রীতির দেশ। এদেশে কোন মৌলবাদের স্থান নেই। বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় থাকাকালে এ দেশের গনতন্ত্রকে বির্ষজন দিয়ে তালেবান জঙ্গিরাষ্টে পরিনত করতে চেয়েছিল। কিন্তু আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর জননেত্রী শেখহাসিনার বলিষ্ট নেতৃত্বে সেই জঙ্গি ও মৌলবাদের উত্থানের সিড়ি ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পড়ে কেউ বলেনি হিন্দু কতজন জীবন দিয়েছে, মুসলমান কতজন জীবন দিয়েছে, সবাই এক কথায় বলে দেশ স্বাধীন করার জন্য বাঙ্গালী রক্ত দিয়েছে। তাই আসুন দেশকে সম্প্রতীর দেশ. শান্তির দেশ ও একটি উন্নত দেশ হিসেবে গড়ার জন্য জননেত্রি শথ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করি। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন , উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোসারেফ হোসেন খান. উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ও কালাইয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এস এম ফয়সাল আহম্মেদ মনির হোসেন মোল্লা, প্রভাষক জহির খান, বাউফল থানার ওসি আ জা ম মাসুদুজ্জামান, কৃষি কর্মকর্তা সারোয়ার হোসেন, আমাদেও সময়ের বাউফল প্রতিনিধি কৃষ্ণ কর্মকার, কালাইয়্ াসার্বজনীন পূজা উৎযাপন পরিষদের সভাপতি অতুল পাল, সাধারন সম্পাদক উত্তম কুমার কর্মকার, যুব কমিটির সভাপতি কমল কর্মকার, সাধারন সম্পাদক পালাশ কর্মকার, ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতৃবৃন্দসহ হিন্দু সম্প্রদায়ের বিশিষ্টজন।