বাউফলে যুবলীগ নেতাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম

0

অতুল পাল, বিশেষ প্রতিনিধি: বাউফলের নওমালা ইউনিয়নের নগরের হাট বাজারে এক যুবলীগ নেতাকে পিঠিয়ে ও কুপিয়ে জখম করেছে সন্ত্রাসিরা। একই সময় ওই সন্ত্রাসি দল এক শ্রমিকলীগ নেতাকে পিটিয়ে জখম করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাঙ্চুর করে ব্যপক লুটপাট করেছে। গত শুক্রবার বিকাল ওই ঘটনা ঘটেছে। ইউপি নির্বাচনের জের ধরে ওই সহিংস ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

জানা গেছে, নওমালা ইউপির চেয়ারম্যান শাহজাদা হাওলাদারের সমর্থক ও আদাবড়িয়া ইউপির সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা আশ্রাফ ফকির হত্যা মামলার অন্যতম আসামি বেল্লাল বেপারির নেতৃত্বে ৮-১০ জনের একটি সন্ত্রাসি দল ঘটনার দিন বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে দেশিয় অস্ত্র নিয়ে নওমালা ইউপির ৩নং ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের সভাপতি আলতাফ হোসেন সিকদারের নগরের হাট স্টেশনারী দোকানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙ্চুর করে এবং প্রায় ২ লাখ টাকার মালামাল লুটপাট করে নেয়। এসময় নওমালা ইউপি যুবলীগ নেতা কবির মৃধা বাধা দিতে গেলে  সন্ত্রাসিরা তাকে  কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। তাকে আশংকা অবস্থায় শুক্রবার সন্ধায় বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। একটি সূত্র জানায়, নওমালা ইউপি নির্বাচনের সময় বিএনপি জামাত সমর্থিত আওয়ামী লীগের বিদ্রোহি প্রার্থী শাহজাদা হাওলাদার ও নৌকার প্রার্থী এ্যডভোকেট কামাল হোসেন বিশ^াসের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্পা ধাওয়াসহ নানা অনিয়মের করাণে একটি কেন্দ্রে ফলাফল স্থগিত করা হয়। প্রায় ৪ মাস পরে নির্বাচন কমিশন বিদ্রোহী প্রার্থী শাহজাদা হাওলাদারকে চেয়ারম্যান ঘোষণা দেয়ার পর গত ৩ আগষ্ট পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে তার শপথ অনুষ্ঠান হয়। এরপরই তার সমর্থক বেলাøাল বেপারির নেতৃত্বে একটি গ্রুপ এলাকায় বেপোরেয়া হয়ে ওঠে এবং প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী কামাল বিশ^াসের সমর্থকদের ওপর হামলা শুরু করে। তবে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শাহজাদা হাওলাদার বলেন, আমার কোন সমর্থক এধরণের ঘটনার সাথে জড়িত না। স্বার্থন্বেষী মহল আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। ওই ঘটনার পর এলাকায় পুলিশি টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আযম খান ফারুকী জানান, এখনো মামলা হয়নি। তবে মামলা দেয়ার প্রস্তুতি চলছে।