বাউফলে শিক্ষার্থীর চুল কাটার অভিযোগে অভিভাবক শিক্ষকের মধ্যে উত্তেজনা

0

 

এম অহিদুজ্জামান ডিউক, প্রতিনিধিবাউফলঃ পটুয়াখালীর বাউফলে সহপাঠিদের সামনে চুল কেটে দেয়ার ঘটনায় স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেছে এক শিক্ষার্থীর। লজ্জায় গত ৩০ জানুয়ারীর পর থেকে স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী রাকিব হোসেন। এ ঘটনায় উপজেলার রাজাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অভিভাবক ও শিক্ষকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ক্রিকেটারদের ষ্টাইলে চুল রাখার অপরাধে শ্রেণী শিক্ষক কামরুল হাসান দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী  রাকিব হোসেনকে অফিস কক্ষে ডেকে আনেন। এরপর স্কুলের অন্যান্য শিক্ষক ও সহপাঠিদের সামনে কাচি দিয়ে তার চুল কেটে দেন। চুল কেটে দেয়ার পর সহপাঠিরা তাকে হাসি ঠাট্টায় মেতে  ওঠে। এই অপমান সইতে না পেরে  রাকিব স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়।

রাকিবের বাবা হানিফ হাওলাদার বলেন, কোন অন্যায় করলে শিক্ষকরা আমাকে অবহিত করতে পারতেন। স্কুলে যাওয়ার পর এভাবে সকলের সামনে চুল কেটে অপমান করা ঠিক হয়নি। এখন আবার  বিদ্যালয় থেকে ছাড়পত্র দেয়ার হুমকি দিচ্ছেন শিক্ষকরা। আমার ছেলে স্কুলে যেতে না পারলে শিক্ষক ও স্কুলে যেতে পারবেনা। শিক্ষক কামরুল হাসান বলেন, শিক্ষক হিসেবে ছাত্রদের একটু শাসন করতেই পারি। বিদ্যালয় আসা বন্ধ করে দিয়েছে কেন জানতে চাইলে তিনি নিশ্চুপ থাকেন। এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসির উদ্দিন বলেন ঘটনার দিন আমি প্রতিষ্ঠানের কাজে এলাকার বাইরে ছিলাম।