বাবা নিখোঁজ ॥ বিনা চিকিৎসায় মারা গেল একমাত্র ছেলে

2

কে এম সোহেল আমতলী প্রতিনিধি : হতদরিদ্র পরিবারের জন্য দু’বেলা দু’মুঠো আহার জোগাতে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ রয়েছে পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার কুয়াকাটার উচাইন পাড়ার খলিল হাওলাদার (২৭)। এক সপ্তাহ আগে বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবিতে সে নিখোঁজ হয়েছে। বাড়িতে রেখে যাওয়া স্ত্রীসহ ২ শিশু সন্তান অর্ধাহার-অনাহারে অসুস্থ হয়ে পরেছে। অসুস্থ সন্তানদের নিয়ে শনিবার সন্ধ্যার পরে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে আসেন খলিলের হতভাগ্য স্ত্রী রেক্সোনা বেগম। হাসপাতালে ভর্তি করার ১০ মিনিটের মধ্যেই মারা যায় ৫ মাস বয়সি শিশু সন্তান বায়েজিদ। সাড়ে ৩ বছর বয়সি মেয়ে সুমাইয়াকে হাসপাতালের বেডে রেখে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন সন্তান হারানো রেক্সোনা বেগম।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. কামরুল ইসলাম জানান, অসুস্থ বায়েজিদকে হাসাপাতালে নিয়ে আসার সাথে সাথেই ভর্তি করা হয়। চিকিৎসা শুরু করার আগেই ছেলেটি মারা যায়। তিনি আরো জানিয়েছেন, শিশুটি পুষ্টিহীনতা, রক্তশূন্যতা, কোষ্টকাঠিন্যসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলো।

শিশুটির মা রেক্সোনা বেগম কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, তার স্বামী সাগর থেকে ফিরে এলে ডাক্তার দেখানোর কথা ছিলো। কিন্তু শিশুটির কষ্ট সহ্য করতে না পেরে বরগুনা  জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে এলাম। এখন তার লাশ নিয়ে বাড়ীতে ফিরে যেতে হবে বলেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।  রেক্সোনার এখন আপন বলতে সাড়ে তিন বছরের মেয়ে সুমাইয়া, একমাত্র বোন, আর ভাশুর (স্বামীর বড় ভাই) ছাড়া কেউ নেই।

শুন্য হাতে আসা হতদরিদ্র রেক্সোনার শিশুটির মরদেহ নিয়ে বাড়ী যাবার মতো কোন অবস্থা ছিলোনা। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় লোকজন টাকা তুলে একটি এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে তাকে স্বামীর বাড়ীতে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছেন।