বেতাগীতে পানিবন্দি মানুষের দূর্ভোগ চরমে

5

মহসীন খান ,বেতাগী প্রতিনিধিঃ অতিবর্ষন ও জোয়ারে বিষখালী নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায প্লাবিত হয়েছে বেতাগী পৌরসভা ও সদর ইউনিয়নের অধিকাংশ ওয়ার্ড। এসব এলাকায় নদী ও খালের কুল ছাপিয়ে বাঁধ ও রাস্তার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে পানি। তলিয়ে গেছে বেতাগী পৌর শহর, বাড়িঘর, স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসা, সরকারি অফিস ও ফসলি জমি। সেই সঙ্গে ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। পানিবন্দি হয়ে পরে চরম দূর্ভোগে পড়েছে এখানকার বাসিন্দারা। মারত্মক ঝুকির মধ্যে বিষখালী নদীরতীরবর্তী এ মানুষগুলো। কৃষকরা জানায়, আউশ ক্ষেত ও আমন বীজতলা বিনষ্ট হওয়ার উপক্রম হওয়ায় চরম ক্ষতির মুখে পরেছেন। সবজির ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় লোকসানে পরেছেন তারা। বিশেষ করে বেতাগী সদর ইউনিয়নের উত্তর বেতাগী, ঝোপখালী ও বেতাগী পৌরসভার ১,৫,৭ও ৮ নং ওয়ার্ডের ১০ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে বর্তমানে চরম ভোগান্তিতে রয়েছে। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ১নং ওয়ার্ডের আঃ মন্নান,আলতাফ হোসেন,সোহরাব হোসেন,মোখলেছুর রহমান,নুরু মিস্ত্রি,আফজাল হোসেন, আবদুর রব,হুমায়ুন কবির,আবদুস সোবাহান,মোঃ ইউনুচ,আজমল হোসেন,আবদুজ জব্বার, আঃ জলিল খান,মোঃ কামাল হোসেন,মিজানুর রহমান,শাহাদাত হোসেন,রিপন খান,মোশারেফ হোসেন,তৈয়ব আলী, আনসার উদ্দিনসহ ঐসব এলাকার ৪ শতাধিক পরিবার রান্নবান্না করতে না পারায় গত দুইদিন রবিবার ও সোমবার না খেয়ে চরম কষ্টে রয়েছে। বেতাগী পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবিএম মাসুদুর রহমান খান বলেন, এ নিয়ে চলতি বছরে ৭ থেকে ৮ বারের মতো পানিতে ডুবলো এ এলাকা।  সংকট নিরসনে উঁচু করে বড়িবাঁধ, শহর রক্ষা বাঁধ ও স্লুইজ নির্মান জরুরি হয়ে পরেছে। কিন্তু প্রয়োজনীয় অর্থের অভাবে সমস্যার সম াধানে কাজ করা যাচ্ছে না।