মরিচবুনিয়া যুবলীগের ৪ কর্মী আহত ঘটনায় আদালতে মামলা

3

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ পটুয়াখালী সদর উপজেলার মরিচবুনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী বহিস্কৃত নেতা ইউপি‘র বিদ্রোহী প্রার্থী  এ কে এম মনিরুজ্জামান জাকির প্যাদার নির্বাচনে তার পক্ষে কাজ না করায় দেশীয় অস্ত্রসহ হামলা চালিয়ে মরিচবুনিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড  যুবলীগের সভাপতি মোঃ নাজমুল হোসেন আকন(৩৫) ,কালিকাপুর ইউনিয়নের  ৭নং ওয়ার্ডের স্বেচ্ছাাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মিজানুর রহমান (৩২), মিঠু (২৬),শফিক আকন (৪৫)সহ ০৪ জন আহত হয়েছেন। আহতরা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এ ব্যাপারে আহত নাজমুল হক আকন বাদি হয়ে এ কে এম মনিরুজ্জামান জাকির প্যাদাসহ ৪জন এবং অজ্ঞাত ৭/৮জনের বিরুদ্ধে পটুয়াখালী দ্রুত বিচার আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন । মামলা নং- ১৩২/১৬।

মামলা সুত্রে জানা যায়,গত ইউপি নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী মরিচবুনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী বহিস্কৃত নেতা এ কে এম মনিরুজ্জামান জাকির প্যাদার পক্ষে কাজ না করার অপরাধে আমাদের ওপর হামলা চালানো হয়েছে বলে মামলার বাদি নাজমুল আকন জানান। তিনি আরও জানান,তারা সরকার দলীয় নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার অপরাধে তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন হয়রানী মূলক ৪টি মামলা দায়ের করেন জাকির প্যাদা । ১৬ আগষ্ট ঘটনার দিন বিকেলে  মিঠুকে ব্যাব দিয়ে আটক করা হয়। র‌্যাব  কোন সত্যতা না পেয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ছেড়ে দেয়। মিঠুকে নিয়ে যুবলীগের সভাপতি মোঃ নাজমুল হোসেন আকন এবং স্বেচ্ছাাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মিজানুর রহমান মটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফিরছিল। ওই দিন রাত ৮টার সময় পাটুখালী উত্তরপাড়ে পৌছামাত্র আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা জাকির প্যাদা দলবল নিয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। হামলায় নাজমুল হোসেন আকন, মোঃ মিজানুর রহমান গুরুতর আহত হন। তাদেগরকে স্থানীয়রা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করান। মিঠু এবং শফিক আকনের আঘাত সামান্য হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে যান। এ ব্যাপারে মরিচবুনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী বহিস্কৃত নেতা এ কে এম মনিরুজ্জামান জাকির প্যাদা বলেন, আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে মিথ্যা মামলা দিয়েছে । আমি ওই দিন জেলার নেতাদের সাথে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম শাহাদত ও জাতীয় শোক দিবসের প্রোগ্রামে ছিলাম।