মাছের সাথে শত্রুতা! অবশেষে বেতাগী থানায় মামলা

0

 

মহসীন খান,বেতাগী  প্রতিনিধি ঃ বেতাগী উপজেলার বিবিচিনি ইউনিয়নের দেশান্তরকাঠী গ্রামের খ্রীস্টান পাড়ায় জমি-জমা বিরোধের জের ধরে শত্রুতার  বলি হয়েছে লক্ষাধিক টাকার  মাছ। এ নিয়ে অবশেষে থানায় মামলা  হয়েছে। এ্যালুƒমিনিয়াম (ফসপেক্ট) জাতীয় বিষাক্ত ট্যাবলেট প্রয়োগের ফলে  ঘেরের মাছ নিধনের  এ ঘটনায় রয়েছে পাল্টা- পাল্টি অভিযোগ। জনপ্রতিনিধি,উপজেলা মৎস কর্মকর্তা ও থানা পুলিশ ঘঁটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

একই গ্রামের নিপু গোমেজের সাথে বুলবুল গোমেজের দীর্ঘদিন ধরে জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ক্ষতিগ্রস্থ ঘেরের মালিক নিপু গোমেজ অভিযোগ করেন, গত ২২ সেপ্টেম্বর ০১৭১৮৩৮৪১২৮ নম্বর মুঠো ফোন থেকে বুলবুল গোমেজ তাকে ফোন করে বিভিন্ন মামলা প্রত্যাহারের দাবি করে তা না হলে বড় ধরনেরক্ষতি সাধনের হুমকী দেয়। পূর্ব প্রতিশোধ নিতে  এরই জের ধরে তিনি রাতের আধাঁরে তার মৎস ঘেরে এ্যালুƒমিনিয়াম (ফসপেক্ট) জাতীয় বিষাক্ত ট্যাবলেট প্রয়োগের মাধ্যমে এ পাশবিকতার আশ্রয় নেয় এবং ঘঁটনার পরই আর তাকে এলাকা দেখা যায়নি। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর)  বিকালে  এ বিষয় বেতাগী থানায়  একটি মামলা  হয়েছে (নং-২৬,তারিখ:২৮-০৯-২০১৬ ইং)।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় পুকুরের মধ্যে হঠাৎ মাছ ভাসতে দেখে ঘেরের   মালিক নিপু গোমেজ টের পায়। স্থানীয় গন্যমান্য লোকজন ডাকলে এসময় তারা ঘেরের মধ্যে ভেসে ওঠা মরা মাছ ও বিষাক্ত ট্যাবলেটের কৌটা দেখতে পান। নিপু গোমেজ জানান,একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের থেকে ৮০ হাজার ও শিবপুর ক্রেডিট ইউনিয় থেকে ১ লক্ষ টাকা ঋন নিয়ে ৪০ শতাংশ জমির মৎস ঘের তৈরি করে। এতে রুই, কাতলা, চাইনিজ পুটি ও তেলাপিয়া জাতীয় মাছ চাষ করে ছিলেন কিন্ত এখন যে, ক্ষতি হয়েছে তা পুষিয়ে ওঠার নয়। তিনি বর্তমানে চরম অসহায়  ও নি:স্ব হয়ে পড়েছেন। বুলবুল গোমেজ এ অভিযোগ অস্বীকার করে মুঠোফোনে বলেন,জমি-জমা নিয়ে মতনৈক্যর কারনে প্রতিপক্ষ তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। আমি এক বছর ধরে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করছি। তাই ওই দিনই  ছুটি শেষ হওয়ায়  এলাকা ছেড়ে ঢাকায় চলে আসি। অন্য কোন কারনে নয়। বেতাগী থানার এসআই মো: নজরুল ইসলাম জানান,তিনি সরেজমিনে ঘটনা স্থল  পরিদর্শন করে এসেছেন। উপজেলা মৎস কর্মকর্তা এ.এম বদরুজ্জামানও মাছ নিধনের সত্যতা স্বীকার করেন। এ ব্যাপারে বিবিচিনি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নওয়াব হোসেন নয়ন অভিযোগ করেন, শত্রুতা থাকতে পারে তবে  মানুষ হিসেবে কারও এ ধরনের অমানবিক কাজ করা ঠিক নয়।