মা-মেয়েকে গণধর্ষন: গ্রেপ্তার-১

3

অতুল পাল, বিশেষ প্রতিনিধি: বাউফলের কাছিপাড়া ইউনিয়নের এক মা মেয়েকে ট্রলারে তুলে নিয়ে গণধর্ষন করেছে দৃর্বৃত্তরা। শনিবার রাতে উপজেলার  কেশবপুর ইউনিয়নের চর ঈশান এলাকায় ওই ঘটনা ঘটেছে। রাত ১১ টার দিকে পুলিশ খবর পেয়ে এক ধর্ষকে আটকসহ মা মেয়েকে উদ্ধার করে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন। রোববার সকালে মা মেয়েকে মূমূর্ষ অবস্থায় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট পটুয়াখালী  হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে

বাউফল থানা পুলিশ স্থানীয়দের থেকে জানা গেছে, কাছিপাড়া বাজারের দর্জি পরিতোষ বর্ধনের স্ত্রী(৩৫) মেয়ে কাছিপাড়া . রশিদ খান কলেজের ছাত্রী (১৭) আনারশিয়া হাই স্কুলের সামনে থেকে শনিবার দুপুরের দিকে সোহেল নামের ভাড়ায় চালিত এক মটর সাইকেল চালককে নিয়ে কালাইয়া ইউপির শৌলা গ্রামে নুরজাহান পার্কে ঘুরতে যায়।  সেখান থেকে তাদের পূর্ব পরিচিত নাজিরপুর ইউপির ছয় হিস্যা গ্রামের কাদের মৃধার ছেলে হারুন মৃধার কথা বলে আরেক মটর সাইকেল চালক তাদেরকে নিমদি লঞ্চঘাটে নিয়ে নদীতে ঘুড়াবে বলে একটি ট্রলারে ওঠায়। একই সাথে রাম নগর তাঁতেরকাঠী গ্রামের রশিদ মল্লিকের ছেলে নূর আলম মল্লিক, হারুন মৃধা, রহিম মীর, সোহেল, ট্রলার চালক মিস্ত্রি ট্রলারে ওঠে ট্রলারটি চর ঈশানের কাছে নিয়ে মা মেয়েকে পালাক্রমে ধর্ষন করে। এক পর্যায়ে মেয়েটির চিৎকার করতে থাকলে চর ঈশানের বাসিন্দারা ট্রলারটি ডাকাত দলের ভেবে ডাকচিৎকার দিয়ে তাদের নৌকা ট্রলার দিয়ে ওই ট্রলারটি আটক করে। এসময় নুর আলম বাদে অন্যান্য দৃর্বৃত্তরা নদীতে ঝাপ দিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনা রাত ১১টার দিকে বাউফল থানায় জানালে পুলিশ গিয়ে রাত ১২ টার দিকে নুর আলমকে আটক করে এবং মা মেয়েকে উদ্ধার করে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মঞ্জুরুল আলম জানান, মেয়ের থেকে মায়ের অবস্থা খুবই খারাপ। পরীক্ষা উন্নত চিকিৎসার জন্য রোববার সকালে তাদেরকে পটুয়াখালী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে

বাউফল থানার ওসি ফারুকি জানান, পরিতোষ বর্ধন বাদি হয়ে গণধর্ষণের মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে। আমরা বাকি আসামীদের দ্রুত আটক করার অভিযান শুরু করেছি