মির্জাগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি আদায়

1

 

মোঃ ফারুক খান, মির্জাগঞ্জ : পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলায় এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরনে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ উঠছে। হাতে গোনা দুই একটি প্রতিষ্ঠান ছাড়া শিক্ষাবোর্ডের আদেশ উপেক্ষা করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নির্ধারিত ফি না নিয়ে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা করে আদায় করছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। ফরম পূরনের টাকার সাথে কোচিং ফি’র নামে চলছে এ বানিজ্য।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস জানায়, চলতি বছরে বরিশাল শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের জন্য বিজ্ঞান বিভাগে ১৪৪৫ টাকা, মানবিক ও ব্যাবসা বিভাগে ১৩৫৫ টাকা ফরম পূরণের ফি নির্ধারন করা হয়েছে।

কিন্তু শিক্ষার্থী ও অবিভাবকদের অভিযোগ উপজেলার প্রায় সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা এবং এ টাকা বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সদস্যসহ ভাগ বটোয়ারা করে নেন শিক্ষকরা। সুবিদখালী র,ই পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক জানান, আমার ছোট একটি চায়ের দোকান এ দিয়ে কোন রকম সংসার পরিচালনা করি কিছু টাকা কম দিতে চেয়েছিলাম কিন্তু স্যারেরা সাফ জানিয়ে দেন ৩ হাজার টাকার নিচে কোন ফরম পূরণ করা হবে না। পরে ধারদেনা করে ৩ হাজার টাকা দিতে বাধ্য হয়েছি। মাধবখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি মোঃ জিল্লুর রহমান বলেন আমার ইউনিয়নে প্রতিটি বিদ্যালয়ে অতিরিক্ত টাকা নেওয়া হচ্ছে জানতে পেরে আমি চৈতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে ফোন দিলে তিনি বলেন আপনার কোন সুপারিশ থাকলে ৩ হাজার টাকা করে দিতে হবে। পরে আমি বাধ্য হয়ে ৫ জন গরীব শিক্ষার্থীকে জনপ্রতি ২ হাজার ৫ শ টাকা করে ফরম পূরনের জন্য দেই এবং অন্য একজনকে ৩ হাজার টাকায় ফরম পূরণ করে দেই। সুবিদখালী আর, কে বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর এক অভিভাবক বলেন আমার মেয়ের ফরম পূরনের জন্য ৩ হাজার ৫ শ টাকা নিয়েছে। এভাবে ভয়াং মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সুলতানাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কাকড়াবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দেউলী পল্লী মঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, গাজীপুরা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ঝাটিবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কাঠালতলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মির্জাগঞ্জ দরগাহ শরীফ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, চরখালী সমবায় মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহ প্রায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই শিক্ষার্থী অভিভাবকরা ক্ষোভের সাথে বলেন, সরকার ফরম পূরনে অতিরিক্ত অর্থ না নেওয়ার জন্য প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে বলা সত্ত্বেও কেউ সেই আইন মানছেন না। এব্যাপারে মির্জাগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন সব প্রতিষ্ঠানকে বোর্ড ফি ছাড়া অতিরিক্ত টাকা নিতে নিষেধ করা হয়েছে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক কর্মকর্তা মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন আমরা সকল স্কুলে প্রধান শিক্ষককে চিঠি দিয়ে বোর্ড ফির বাইরে অতিরিক্ত টাকা নেওয়া যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছি। এরপরও যদি কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অতিরিক্ত ফি আদায় করে থাকে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বরিশাল শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন লিখিত অভিযোগ পেলে ঐ সকল প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।