মির্জাগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ  আহত-৪॥ বসত ঘর ভাংচুর

1

 

মোঃ বাদল হোসেন,মির্জাগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ পটুয়াখালী মির্জাগঞ্জ উপজেলার ঘটকেরে আন্দুয়া গ্রামে একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ৪ জন আহত ও ফিরোজা বেগমের বসত ঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করা হয়েছে। আহতরা হচ্ছে-ফিরোজা বেগম,লিপি আক্তার,মোঃ কামাল হোসেন ও ইব্রাহীম। তাদেরকে মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত বৃহস্পতিবার বিকালে। এ ঘটনায় মির্জাগঞ্জ থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের হয়েছে। ফিরোজা বেগমের ছেলে মোঃ কামাল হোসেন বাদি হয়ে মির্জাগঞ্জ থানায় ৭ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। মির্জাগঞ্জ থানা পুলিশ দুই পক্ষের দু’জন আসামীকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করেছেন। মামলার আসামীরা হচ্ছে-মোঃ ইউসুফ বিশ^াস,ইব্রাহীম বিশ^াস,শিমু আক্তার,ইউনুচ বিশ^াস,হযরত আলী বিশ^াস,মোঃ সোহরাফ ও মোসাম্মৎ নাসিমা বেগম। মামলা অভিযোগে বলা হয়- মির্জাগঞ্জ উপজেলার ঘটকের আন্দুয়া গ্রামের মোঃ খালেকে মাতুব্বরের সাথে একই বাড়ির মোঃ ইউসুফ বিশ^াসের সাথে পারিবারিক ভাবে বিরোধ চলে আসছিল। ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার বিকালে ফিরোজা বেগমের সাথে ইউসুফের মা’র সাথে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে কথাকাটাকাটি হয়। এ সময়ে ফিরোজার ছেলে কামাল হোসেন মটরসাইকে যোগে বাড়িতে এলে উত্তেজিত ইউসুফসহ ৮-৯জন সন্ত্রাসী লোকজন নিয়ে কামালের উপর হামলা চালায়। এতে কামালের মাথায় কোপ দিয়ে গুরুত্বর আহত করে। ছেলের দুরাবস্থা দেখে মা ফিরোজা বেগম ও তারঁ বোন লিপি আক্তার কামালকে বাচাঁতে এলে তাদেরকেও এলোপাথারি ভাবে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করে এবং বসত ঘরে কুপিয়ে তছনছ করে চলে যায়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মির্জাগঞ্জ থানার এসআই মোঃ সাইদুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় থানায় দু’টি মামলা দায়ের হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।