মোরা  কি খাইয়া বাঁচমু মোগো জমি /জমা  পানিতে ডুইব্বা  রইছে আমতলীতে ৩ মাস ধরে পানিবন্ধী পাঁচ শতাধিক পরিবার

0

 

আমতলী প্রতিনিধিঃ বরগুনার আমতলী উপজেলার আড়পাঙ্গাশিয়া ও আমতলী সদর ইউনিয়নের  ৪ গ্রামের  পাঁচ শতাধিক পরিবার রোয়াুনর ঘূর্নিঝড় থেকে  অদ্যবধি  পানিবন্দী হয়ে  রয়েছেন।পানি নিস্কাসনের পথ বন্ধ থাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।  পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়ি বাধেঁর  কারনে পানিচলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। পানি চলাচল বন্দ হওয়ায়  এলাকার  ২ হাজার একর   কৃষি জমি ও বাড়ী ঘর পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে ।

দেখা গেছে, আমনের বীজতলা করতে ই পারেনী কৃষকরা।   উত্তর টিয়াখালী আদর্শ গ্রামের সভাপতি     কৃষক   আব্দুল খালেক বিশ্বাস    বলেন মোরা  কি খাইয়া বাঁচমু মোগো জমি /জমা  পানিতে ডুইব্বা  রইছে। তারিকাটা গ্রামের কৃষক আব্দুল ওহাব বলেন রোয়ানুর বন্যায় যে পানি উঠেছে  সে পানি ও বর্ষার  পানি জমে পূর্ব তারিকাটা, উত্তর টিয়াখালী , টিয়াখালী আদর্শ গ্রাম ,টিয়াখালী গ্রামের পাঁচ শতাধিক কৃষক  জৈষ্ঠ মাস থেকে পানিবন্ধী হয়ে রয়েছি।গ্রামের লোকজন কেহ বাড়ি ঘরে থাকতে পারেনা।এবং শতাধিক মাছের ঘের ও পুকুর সবজী ক্ষেত পচে গেছে।সামনে আমন মৌসুম আমরা  আমনের বীজতলা করতে পারি নাই  ।

এ ব্যাপারে আড়পাঙ্গাশিয়া ইউপি চেয়ারম্যান  এ কে এম নুরুল হক বলেন  শ্রীঘই ব্যবস্থা নেয়া হবে।আমতলী উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বার্হী অফিসার মো. নাজমুল আলম বলেন  জরুরী ভিত্তিত্বে ব্যবস্থা নেয়া হবে  ।

 

পানি উন্নয়ন বোর্ডের বরগুনার নির্বার্হী প্রকৌশলী এস এম শহিদুল ইসলাম বলেন  সংশ্লিষ্ট এস ও কে  ঘটনা স্থল পরিদর্শন করে অবহিত করতে বলেছি ।

আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জি এম দেলওয়ার হোসেন বলেন  কৃষকদের জন্য পানিস্কাশন জরুরী হয়ে পড়েছে ।পানি নামানোর জন্য জরুরী ব্যবস্থা নেয়া হবে।