রাঙ্গাবালীতে মৎস্য কর্মকর্তার নেতৃত্বে মাছের আড়ৎ ভাংচুর

6

বিশেষ প্রতিনিধি ঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে মাছের আড়ৎ ভাংচুর ও আড়ৎ মালিককে সামাজিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য দশবার কান ধরে ওঠবস করানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল শনিবার দুপুরে উপজেলার বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের ফেলাবুনিয়া বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শনিবার দুপুরে বুড়া গৌরাঙ্গ নদীতে নৌ-বাহিনীর সদস্যদের সহযোগীতায় অভিযান পারিচালনার সময় মৎস্য কর্মকর্তা মো: আসাদুজ্জামান ফেলাবুনিয়া বাজারের মৎস্য ব্যবসায়ী মো: লিমন প্যাদা (৩২) কে নদীর তীরে এসে কথা শুনতে বলেন। এসময় সে নদীর তীরে না যাওয়ায় ক্ষুব্দ হয়ে ওই মৎস্য কর্মকর্তা তীরে উঠে তার আড়তে জাটকা এবং কারেন্ট জাল আছে বলে আড়তের তালা ভেঙ্গে তল্লাশীর নামে হাতুড়ী দিয়ে বেশ কিছু ককসিড ভেঙ্গে ফেলে। এর পর সে নেছারের মাছের আড়তের তালা ভেঙ্গে তল্লাশী করে কোথাও জাটকা কিংবা কারেন্ট জাল না পেয়ে আড়ৎ মালিক লিমন প্যাদাকে সামাজিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য দশবার কান ধরে ওঠ বস করায়।

ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ী লিমন প্যাদা জানান, তিনি এলাকায় ভীষন ভাবে হেয় প্রতিপন্ন হয়েছেন এবং তার প্রায় দশ হাজার টাকার ককসিড ভাংচুর করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে কলাপাড়ায় অতিরিক্ত দায়িত্ব পালনরত মৎস্য কর্মকর্তা মো: আসাদুজ্জামান তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

এ বিষয়ে পটুয়াখালী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. মো: আবুল হাসানাত সাংবাদিকদের বলেন, মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে প্রমানিত হলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।#