স্বামীর অত্যাচারের ভয়ে জীবন বাঁচাতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে ইতি রানী

4

 

রিপন কর্মকার,দশমিনা প্রতিনিধিঃ  অনেক স্বপ্ন নিয়ে স্বামীর সংসারে গিয়েছিল দশমিনা উপজেলার বহরমপুর গ্রামের ইতি রানী। কিন্তু বিয়ের পর স্বামীর অব্যাহত অত্যাচারে এখন জীবন বাচাতে পলিয়ে বেড়াচ্ছেন ইতি। মামলা ও স্থানীয় বিভিন্ন সূত্র জানায়, ২০১১ সালের ৭ ফেব্রুয়ারী পারিবারিক ভাবেই বিয়ে হয় ঝালকাঠি জেলার কাঠালিয়া উপজেলার বড় কাঠালিয়া গ্রামের শ্রীকান্ত শীলের ছেলে কৃষ্ণ চন্দ্র শীলের। ইতির বাবা সত্যরঞ্জন শীল ধার দেনা করে প্রায় পাচ লাখ টাকা খরচ করে ধুম ধাম করে মেয়ের বিয়ে দেন। বিয়ের পর থেকেই দুই লাখ টাকার দাবীতে স্বামী কৃষ্ণ চন্দ্র শীল ও তার পরিবারের লোকেরা অত্যাচার শুরু করে ইতির ওপর। অত্যাচার সইতে না পেরে শরীরে ক্ষত নিয়ে ইতি পালিয়ে দশমিনায় এসে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে দীর্ঘ চিকিৎসা নেন। এরপর মোবাইল ফোনে দু লাখ টাকার দাবীতে অব্যাহত হুমকি দিতে থাকেন কৃষ্ণ এমন কি টাকা না পেলে ইতির নগ্ন ভিডিও ইনটারনেটে ছরিয়ে দেওয়ারও হুমকি দেয় সে। গত ৪ এপ্রিল পটুয়াখালী নারী ও শিশু র্নিযাতন ট্রাইবুনালে স্বামী সহ চার জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ইতি। আদালত কৃষ্ণর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ায়ানা জারি করলে দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ১৩ জুলাই আদালতে হাজির হয়ে কৌশলে জামিন নিয়ে আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠে কৃষ্ণ। রবিবার দশমিনার স্থানীয় সাংবাদিকদের ইতি বলেন মামলা তুলে না নিলে তাকে এসিড মেরে ঝলসে দেয়া সহ অব্যাহত হত্যার হুকি দিচ্ছে কৃষ্ণ। এজন্য জীবন ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি। এব্যাপারে বহরমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেন জানান, মেয়েটার ওপর ভয়ানাক র্নিযাতন করেছে স্বামী ও তার পরিবার। তিনি আদালতে এব্যাপারে লিখিত দিয়েছেন বলে জানান।