হতদারিদ্রদের চাল বিতরনে অনিয়ম ইউপি চেয়ারম্যান ও ট্যাগ অফিসারকে আটক করেছে দুদক

8

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ ক্ষমতার অপব্যবহারপূর্বক প্রতারণা ও জালিয়াতির আশ্রয় গ্রহণ করে হত দরিদ্রদের চাল আত্মসাতের অভিযোগে কনকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ শাহিন হাওলাদার ও ট্যাগ অফিসার প্রাক্তন বাউফল উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ সাইদুর রহমানকে গ্রেফতার করেছেন দুদক। রবিবার দুপুর ১২টার দিকে জেলা শহরের মুসলিমপাড়া থেকে ওই দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়।

পটুয়াখালী দুদকের উপ-পরিচালক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান, ২০১৬ সালে হতদারিদ্রদের মধ্য চাল বিতরনে অনিয়ম হয়েছে-এমন একটি সংবাদ প্রকাশিত হয় একটি পত্রিকায়। আর এই সংবাদের জের ধরে তদন্তে মাঠে নামে দুদক। দীর্ঘ দিন তদন্ত করে ২৩৩ জন স্বচ্ছল ব্যক্তিকে হতদরিদ্র ব্যক্তির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এমন অভিযোগের সত্যতা খুজে পায় দুদক। আর এ অভিযোগের তালিকায় পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার  ৬নং কনকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ শাহিন হাওলাদার ও ট্যাগ অফিসার প্রাক্তন বাউফল উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ সাইদুর রহমানের সম্পৃক্ততা মেলে। এ ঘটনায় রোববার (২৮ জানুয়ারী) জেলা শহরের মুসলীম পাড়া থেকে চেয়ারম্যার ও ট্যাগ অফিসারকে গ্রেফতার করে পটুয়াখালী দুদকের সহকারী পরিচালক মানিক লাল দাস। পরে আটককৃতদের বিরুদ্ধে বাউফল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নং-৩১/১৮। উক্ত আসামীদেরকে আদালতে সোপার্দ করা হলে আদালত তাদের জেল হাজাতে প্রেরণ করেন।

প্রসঙ্গত, গত ২০১৬ সালে হতদরিদ্রদের ১০ টাকা কেজি দামের চাল বিতরনের তালিকায় জালিয়াতির আশ্রয় গ্রহণ করে ২৩৩ জন স্বচ্ছল ব্যক্তিকে হতদরিদ্র ব্যক্তির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেন অভিযুক্তরা। তাদের নামে বরাদ্দকৃত ৬,৯৯০ কেজি চাল অনিয়মিত বিতরণের অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে প্রমানিত হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৪৭ সনের ২নং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা এবং দন্ডবিধির ১০৯ ধারায় সংগঠিত অপরাধে আসামী দ্বয়কে গ্রেপ্তার করে দুদক।