হিন্দু-মুসলিম মিলে রাখাইন পরিবারের জমি দখলের অভিযোগ

1

স্টাফ রিপোর্টারঃ পর্যটন নগরী কুয়াকাটায় এবার হিন্দু মুসলিম মিলে রাখাইন পরিবারের জমি দখল করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাতের আধারে সীমান পিলার ভেঙ্গে এ দখল প্রক্রিয়া চালানো হয় বলে অভিযোগ তাদের। জমিতে ফিরলে তাদের দেশ ছাড়া করা হবে এমন হুমকী দেন প্রভাবশালীরা। জমি ফেরত পেতে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তি, পুলিশ,রাজনীতিবীদসহ সকলের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন অসহায় রাখাইন  পরিবারটি । পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে রবিবার রাতে সংবাদ সম্মেলনে এমন কথা জানান রাখাইন পরিবারের সদস্য এচিউ মগ।

লিখিত বক্তব্যে এচিউ মগ বলেন কুয়াকাটা মিস্ত্রিপাড়া এলাকায় তারা কয়েক পুরুষ বসবাস করছেন। পৈত্রিক রেকর্ডীয়  ৬০২ নং খতিয়ানের মালিক গুড়া মগের ক্রমিক বংশধর তারা। বংশ পরম্পরায় হালে লাঙ্গলে চাষাবাদ করে তার ঐ জমি বর্তমান সময় পর্যন্ত ভোগদখল করে আসছেন। সম্প্রতি স্থানীয় প্রভাবশালী ফারুক ভূইয়া,মনোহর চন্দ্র,প্রদীপ,কুলধর,ফণি ভূষণ মিলে একটি রেকর্ড বলে জমি দখল করার প্রক্রিয়া শুরু করেন। তিনি পটুয়াখালী সহকারী জজ আদালতে রেকর্ডের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। অভিযোগ করে তিনি বলেন মামলা চলমান অবস্থা প্রভাবশালী মহলটি তাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকী দিতে থাকে। বাড়াবাড়ি করলে দেশত্যাগে বাধ্য করা হবে বলেও হুমকী দেয়। কুয়াকাটা পৌর মেয়র বিষয়টি মীমাংসার উদ্যোগ নিলে প্রভাবশালীরা শালিস বৈঠকে তাদের পক্ষে কোন কাগজপত্র উপস্থাপন করতে পারেনি। পরে পটুয়াখালী গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উভয়পক্ষকে আদালতের নির্দেশ না আসা পর্যন্ত জমিতে যেতে বারন করে একটি রোয়দাদ নামায় সৃষ্টি করেন। এচিউ মগ কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন তিনি পুলিশের সিদ্ধান্ত মানলেও অপর পক্ষ গত ২৩ জুলাই রাতে তাদের সীমানা পিলার ভেঙ্গে জমি দখলের চেষ্টা করে।

অভিযুক্ত  ফারুক ভূইয়া ও মনোহর চন্দ্র জানান, রাতের আধারে কারা সীমানা পিলার ভেঙ্গেছে তাদের জানা নেই। তাদের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ অস্বীকার করেন তারা।

পটুয়াখালী ডিবি পুলিশের ওসি জাকির হোসেন জানান, আইন শৃংখলা রক্ষার স্বার্থে বিরোধীয় জমিতে উভয় পক্ষকে যেতে নিষেধ করা হয়েছিলো। কোন পক্ষ যদি আইন শৃংখলার অবনতি ঘটায় তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।