৬ কোটি ৪৬ লক্ষ ৬২ হাজার টাকা লোপাট ঘটনায় পটুয়াখালী বিদ্যুৎ সমিতির চার কর্মকর্তা বরখাস্ত

1

 

ডেক্স রিপোর্টঃ বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির চেয়ারম্যান এর নির্দেশে পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ক্যাশিয়ার জায়েদা খানমের বিরুদ্ধে ৬ কোটি ৪৬ লক্ষ ৬২ হাজার ৭১৫.২৫ টাকা আত্মসাতের  ঘটনায় সমিতির জিএম প্রকৌশলী হাফিজ আহম্মদ, এজিএম (অর্থ) রনজিৎ দেবনাথ, হিসাব রক্ষক তরীবুল্লাহ আকন্দ ও ক্যাশিয়ার জায়েদা খানমকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। পলাতক ক্যাশিয়ার জায়েদা খানমের সাত দিনেও খোঁজ মেলেনি । সরজমিনে তদন্ত এসেছেন সমিতির প্রধান কার্যালয়ের পরিচালক (এফএমটি) লুৎফর রহমান ও নির্বাহী পরিচালক শাওনেওয়াজ এর নেতৃত্বে পৃথক দুটি তদন্ত টিম। তদন্ত টিমের অন্য সদস্য কর্মকর্তারা হলেন ডিডি শফিকুর রহমান, সহকারী পরিচালক খলিলুর রহমান, পরিচালক অরুন কুমার চৌধুরী ও ডিডি ফকির শরীফ উদ্দিন। নির্বাহী পরিচালক শাওনেওয়াজ এর নেতৃত্বের দলটি তদন্ত করে গতকাল শুক্রবার ঢাকায় ফিরে গেছেন বলে পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির এজিএম (প্রশাসন) আবু সালেহ মো. হামিদ জানান।

উল্লেখ্য,পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ক্যাশিয়ার জায়েদা খানম ক্যাশিয়ার হিসাবে ২০০৫ -২০০৬ইং সন হতে ব্যাংকের সীল স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া ব্যাংক ডিপোজিট স্লীপ ও ব্যাংক স্টেটমেন্ট তৈরী করে সমিতির গ্রাহকদের পরিশোধিত  বিল টাকা অগ্রনী ব্যাংক পুরান বাজার পটুয়াখালী শাখায় সমিতির এসটিডি হিসাব নং ১৫ হিসাব শাখায় জমা না দিয়ে ৬ কোটি ৪৬ লক্ষ ৬২ হাজার ৭১৫.২৫ টাকা আত্মসাত করার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে সমিতির জিএম প্রকৌশলী হাফিজ আহম্মদ বাদী হয়ে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১২১, তারিখ ৪ এপ্রিল ১৬ইং।

সমিতির হিসাব রক্ষক মো. তরীবুল্লাহ আকন্দ গত ৩১মার্চ ১৬ইং তারিখ উক্ত অগ্রনী ব্যাংক শাখায় সমিতির এসটিডি হিসাব নং-১৫ এর ব্যালেন্স  স্টেটমেন্টে উত্তোলন করে উক্ত পরিমান টাকা আত্মসাতের ঘটনা প্রকাশ করে। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি  কলাপাড়া জোনাল অফিসে বর্তমানে কর্মরত ক্যাশিয়ার জায়েদা খানম টাকা আত্মসাতের ঘটনা স্বীকার করে আস্মসাতকৃত ৬ কোটি ৪৬ লক্ষ ৬২ হাজার ৭১২.২৫ টাকা  আস্তে আস্তে পরিশোধ করবে মর্মে সমিতির জিএম প্রকৌশলী হাফিজ আহম্মদ এর কাছে গত ২ এপ্রিল ১৬ইং তারিখ একটি লিখিত অঙ্গীকার নামা দিয়ে আত্মগোপন করেন জায়েদা খানম।

সমিতির জিএম প্রকৌশলী হাফিজ আহম্মদ, জায়েদা কর্তৃক টাকা আত্মসাতের প্রকৃত পরিমান, আত্মসাতের সাথে জড়িত সমিতির সংশ্লিস্ট কর্মচারীদের দায়-দায়িত্ব নির্ধারন ও ব্যাংকের দায়বদ্ধতার বিষয়টি তদন্ত করার জন্য বাউফল শাখা সমিতির ডিজিএম মো. আবু বকর সিদ্দিককে আহবায়ক করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। সমিতির শত শত গ্রাহকদের জমাকৃত বিদ্যুৎ বিলের ৬ কোটি ৪৬ লক্ষ ৬২ হাজার ৭১৫.২৫ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় জিএম প্রকৌশলী হাফিজ আহম্মদ গত ৪ এপ্রিল সোমবার সদর থানায় উক্ত  মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মামলাটি পটুয়াখালী দুদক অফিসে প্রেরন করে। মালাটি তদন্ত করবে মর্মে অনুমতি চেয়ে উর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছে চিঠি প্রেরন করেছেন বলে দুদক পটুয়াখালী অফিসের কন্ট্রোল অপারেটর মো. নুর হোসেন গাজী জানান।