বাউফল হাসপাতালে রোগিদের খাবার মেন্যূতে জাটকা ইলিশ আকস্মিক পরিদর্শনে এসে হতভম্ব চীফ হুইপ

0

অতুল পাল, বিশেষ প্রতিনিধি ঃ বাউফল উপজেলা ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নানা অনিয়ম ও বিশৃংখলা এবং রোগিদের খাবার মেন্যূতে জাটকা ইলিশ দেখে হতভম্ব হয়ে যান হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি স্থানীয় এমপি ও জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজ। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১২ টার দিকে চীফ হুইপ হঠাৎ বাউফল হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে ওই অবস্থা দেখেন।

 

বাউফল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ও উপজেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ সৈয়দ আহমেদ মিয়ার জানাজায় অংশ নেয়ার জন্য গতকাল মঙ্গলবার চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজ কয়েক ঘন্টার জন্য বাউফলে আসেন। বেলা ৯ টার দিকে উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মজিবুর রহমান হাসপাতালের রোগিদের দুপুরের খাবারের জন্য জাটকা ইলিশ আনা হয়েছে এমন খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে জাটকা ইলিশ জব্দ করে চীফ হুইপের কাছে নিয়ে যান। চীফ হুইপ জানাজা শেষে আকস্মিকভাবে হাসপাতালে গিয়ে রান্নার ঘরে জাটকা ইলিশ দেখে হতভম্ব হয়ে যান। তিনি জাটাকা ইলিশ রোগিদের না দিতে এবং ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও নির্দেশ দেন। এরপর তিনি হাসপাতালের রোগিদের ওয়ার্ডগুলো ঘুরে দেখতে গেলে রোগিরা তার কাছে নানা অনিয়ম ও বিশৃংখলার কথা জানান। পরিদর্শনকালে বিদ্যুৎ থাকলেও পুরুষ কিংবা মহিলা ওয়ার্ডে কোন বাতি ছিলনা। ছিলনা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন কোন বিছানাপত্র। বেড থাকলেও বিছানাপত্র ও আলো-বাতাসের অভাবে বারন্দায় রোগিরা শুয়ে বসে রয়েছেন। হাসপাতলের এমন বেহাল অবস্থা দেখে চীফ হুইপ ক্ষুব্ধ হয়ে দ্রুত হাসপাতালের অবস্থা উন্নতি করার জন্য সংশ্লিষ্টদের এক সপ্তাহের সময় দেন। হাসপাতাল পরিদর্শনের সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মজিবুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহামুদ জামান, ভাইস চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খান, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাসুদুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবদুল মোতালেব হাওলাদার, ইউপি চেয়ারম্যান ইব্রাহিম ফারুক প্রমূখ।